Breaking News
Home / সকল খবর / কারা আগুন দিয়ে মানুষ পুড়িয়ে মেরেছিল, প্রমাণ দিলেন খালেদা জিয়া
loading...
কারা আগুন দিয়ে মানুষ পুড়িয়ে মেরেছিল, প্রমাণ দিলেন খালেদা জিয়া
কারা আগুন দিয়ে মানুষ পুড়িয়ে মেরেছিল, প্রমাণ দিলেন খালেদা জিয়া

কারা আগুন দিয়ে মানুষ পুড়িয়ে মেরেছিল, প্রমাণ দিলেন খালেদা জিয়া

বিএনপি জোটের ডাকা ৯০ দিনের আন্দোলনে গাড়িতে পুলিশই আগুন দিয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। তিনি বলেন, ‘পুলিশই ২০১৪ সালে বিএনপি-জোটের ৩ মাসের আন্দোলনে গাড়িতে আগুন দিয়েছে ও পেট্রোল বোমা দিয়েছে।’ রবিবার সন্ধ্যা ৬টায় রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে ছাত্রদলের এক সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন।

গাইবান্ধায় সাঁওতাল পল্লীতে পুলিশের আগুন দেওয়ার বিষয়টি উদ্ধৃত করে খায়েদা জিয়া বলেন, ‘আমাদের আন্দোলনের সময় পুলিশই গাড়িতে আগুন দিয়েছে। এরপর বিএনপির নামে চালিয়ে দিয়েছে। ছাত্রলীগ-যুবলীগকে নিয়ে পুলিশই ওই সময় নাশকতা চালিয়েছে।’

ছাত্রদলের নেতাকর্মীদের উদ্দেশে বিএনপিনেত্রী বলেন, ‘শেখ হাসিনা সরকারের এত অপকর্ম কিন্তু তোমরা স্লোগান দাও না।’ এরপরই তিনি নেতাকর্মীদের ছাত্রস্বার্থ সংশ্লিষ্ট, শিক্ষা, শিক্ষা উপকরণ নিয়ে কথা বলতে স্লোগান দেওয়ার আহ্বান জানান। খালেদা জিয়া ছাত্রদলকে প্রশিক্ষণের কথাও বলেন। এ সময় নেতাকর্মীরা হাততালি দিয়ে স্বাগত জানান তাকে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সমালোচনা করে বিএনপি চেয়ারপারসন বলেন, ‘শেখ হাসিনা চিরস্থায়ী ক্ষমতার বন্দোবস্ত করতে চান। এ কারণে একের পর এক আইন পাস করছেন। যেন তারা ভবিষ্যৎ বংশধরদেরও ক্ষমতা রাখতে পারেন।’

প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশে বিএনপি চেয়ারপারসন বলেন, ‘আপনি যে জেলারই হোন না কেন, আপনি বাংলাদেশি। গুলি করে মানুষ হত্যা করা যাবে না। পুলিশ কথায় কথায় মানুষ খুন করে। কথায় কথায় গুলি বন্ধ করুন। সেও তো বাংলাদেশি নাকি অন্য কেউ?’

খালেদা জিয়া বলেন, ‘একজন বাংলাদেশি অন্য বাংলাদেশিকে কিভাবে হত্যা করতে পারে? হত্যাকাণ্ড প্রতিনিয়ত বেড়েছে। মাঝখানে একটু কম ছিল। এখন বেড়েছে। কোনও বিচার নেই। তদন্ত প্রকাশিত হয় না।’ এ সময় সাংবাদিক সাগর-রুনির বিচার ও তদন্ত এখন হয়নি মন্তব্য করেন বিএনপি প্রধান।

খালেদা জিয়া ক্ষোভ নিয়ে বলেন, ‘এত গোয়েন্দা-গোয়েন্দা শুনি। বাংলাদেশে কত গোয়েন্দা আছে। অন্য দেশের গোয়েন্দা এই দেশে থাকবে কেন? ’

loading...

রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সংলাপের বিষয়ে খালেদা জিয়া বলেন, ‘বিএনপি রাষ্ট্রপতির সঙ্গে বৈঠক করেছেন।’ রাষ্ট্রপতিও অনেক ইতিবাচক বলে মন্তব্য করেন তিনি। সাবেক এই প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘রাষ্ট্রপতির কথা ভালোই লেগেছে। উনাকেও বলেছি, যতবার ডাকবেন, ততবার আসব। আমরা চাই নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশন। ’ তিনি বলেন, ‘নির্বাচনকালীন একটি নিরপেক্ষ সহায়ক সরকার হতে হবে। এই সরকারই নির্বাচন কমিশনকে সহায়তা করবে। আওয়ামী লীগ তো নির্বাচন সুষ্ঠু চায় না। তারা আইন করছে। তারা ক্ষমতা ছাড়তে আগ্রহী নয়। নির্বাচন হবে সুষ্ঠু। ভোটের মধ্য দিয়ে যারা নির্বাচিত হবেন, তারাই ক্ষমতায় আসবেন। ’

আওয়ামী লীগেও অনেক ভালো ভালো নেতা আছেন বলে মন্তব্য করেন খালেদা জিয়া। তিনি বলেন, ‘২০১৪ সালে যারা অনিবার্চিত হয়ে সংসদের গেছেন, তাদের জন্য তো তারাও কাজ করতে পারছেন না।’

সমাবেশে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ‘সম্প্রতি বিভিন্ন আন্দোলনে অনেক ছাত্রনেতা আহত হয়েছেন, পঙ্গু হয়েছেন, কারাবরণ করেছেন। তাদের এ ত্যাগ বৃথা যাবে না। খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে দেশ পুনর্গঠনের কাজে এ ছাত্রনেতাদের সম্পৃক্ত করা হবে। কোনও কিছু আর অবশিষ্ট নেই। খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে আবার ঘুরে দাঁড়াতে হবে। দেশকে বাঁচাতে হবে। দেশ নিয়ে জিয়াউর রহমান যে স্বপ্ন দেখেছিলেন, তা বাস্তবায়ন করতে হবে।’

রবিবার বিকাল সোয়া চারটায় সমাবেশ স্থলে আসেন খালেদা জিয়া। এরপর জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন করে ছাত্রদলের সমাবেশ উদ্বোধন করেন।

ছাত্রদলের সভাপতি রাজিব আহসানের সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য রাখেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। সঞ্চালনা করেন ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক আকরামুল হাসান।  মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. মঈন খান, ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু, বিদেশ বিষয়ক সম্পাদক ড. আসাদুজ্জামান রিপন প্রমুখ।

সমাবেশের শুরুতে শোক প্রস্তাব উপস্থাপন করেন ছাত্রদলের সিনিয়র সহ সভাপতি মামুনুর রশীদ। সাংগঠনিক প্রতিবেদন পেশ করেন সাংগঠনিক সম্পাদক ইসহাক সরকার।

সমাবেশ উপলক্ষে ছাত্রদলের প্রকাশনা উপ কমিটির উদ্যোগে চারপৃষ্ঠার একটি শহীদতালিকা প্রকাশ করা হয়।

Source: rtnbd

loading...

Check Also

আওয়ামীলীগের অর্ধশতাধিক নেতাকর্মী বিএনপিতে যোগদান

আওয়ামীলীগের অর্ধশতাধিক নেতাকর্মী বিএনপিতে যোগদান

আওয়ামীলীগের অর্ধশতাধিক নেতাকর্মী বিএনপিতে যোগদান করেছেন। শক্রবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে সদর উপজেলা বিএনপির কাযার্লয়ে …

Leave a Reply