ব্রেকিংঃ
Home / সকল খবর / খুনিদের আড়াল করতে জামায়াতের উপর দোষ চাপানো হচ্ছে: লিটনের বোন
খুনিদের আড়াল করতে জামায়াতের উপর দোষ চাপানো হচ্ছে: লিটনের বোন
খুনিদের আড়াল করতে জামায়াতের উপর দোষ চাপানো হচ্ছে: লিটনের বোন

খুনিদের আড়াল করতে জামায়াতের উপর দোষ চাপানো হচ্ছে: লিটনের বোন

আরিফ : গাইবান্ধা-১ আসনের সংসদ সদস্য মঞ্জুরুল ইসলাম লিটনের স্ত্রীসহ দলের নেতারা হত্যাকাÐের জন্য জামায়াতে ইসলামীকে সন্দেহ করলেও এই সংসদ সদস্েযর বোনেরা তদন্তে সব বিষয়কেই মাথায় রাখতে বলছেন।

রবিবার আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক অভিযোগ করে বলেন এমপি লিটন হত্যায় জামায়াত-শিবির জড়িত।

তিনি বলেন, জামায়াত-শিবির অনেক দিন থেকেই লিটনকে হত্যার ষড়যন্ত্র করছিল। অবশেষে তার শেষ রক্ষা হলো না।

এরপর মঙ্গলবার নিহত এমপি লিটনের বড় ভাই শহিদুল ইসলাম বলেন, হত্যাকাÐের আগে মঞ্জুরুল ইসলাম লিটন এমপির নিরাপত্তাকর্মীদের ছুটি নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ এবং প্রশ্ন তুলেছেন। তিনি জানতে চেয়েছেন কে ওই নিরাপত্তাকর্মীদের ছুটি দিয়েছিল। কেনইবা এই ছুটি দেওয়া হলো।

শহিদুল ইসলাম বলেন, ‘তার (লিটন) শত্রুদের বিষয়ে আমার ধারণা নেই। তবে এলাকার লোক তাকে হত্যা করতে পারে না। আমার ভাইকে ভাড়াটে খুনিদের দিয়ে হত্যা করা হয়েছে।’

নিহত এমপি লিটনের বড় ভাই শহিদুল ইসলামের এমন বক্তব্যে সর্বত্র তোলপাড় সৃষ্টি হয়। অনেকেই বলছেন, লিটনের বড় ভাইয়ের এমন বক্তব্যে লিটন হত্যাকাÐের মোটিভ নতুন মোড় নিতে পারে।

এদিকে এতো আলোচনা সমালোচনার পর মুখ খুলেছেন এমপি লিটনের বোন তৌহিদা বুলবুল ও ফাহমিদা বুলবুল কাকলী। তারা বলেন, শুধু জামায়াতকে ঘিরে যেন হত্যা মামলার তদন্ত আটকে না থাকে।

মঙ্গলবার লিটনের বাড়িতে দোয়া মাহফিল হয়। এর মধ্েযই সাংবাদিকদের সামনে আসেন লিটনের দুই বোন ও স্ত্রী। তাদের চোখে মুখে ছিল আতঙ্কের ছাপ, আতঙ্কিত যে তা লুকানোর চেষ্টাও তারা করেননি।

তৌহিদা বুলবুল বলেন, শুধু জামায়াত-জামায়াত করলেই তো হবে না। যদি জামায়াত হয়, জামায়াত। যদি আওয়ামী লীগ হয়, আওয়ামী লীগ। যদি আমি হই, আমি। এনি বডি। আমরা তার পানিশমেন্ট চাই। আমাদের আর কিছু চাওয়ার নেই।

এমপি লিটনের বন্ধু ও তার পরিবারের নিকটজন হিসাবে পরিচিত মুকুট বলেন, জামায়াত হতে পারে। কিন্তু ডাইরেক্ট জায়ামাত করছে-এ কথাটা কখনো বলা হয়নি।

মামলার বাদী ফাহমিদা কাকলী বলেন, আমার ভাইয়ের হত্যাকারী কে, কারা করল- সেটা আমি জানতে চাই এবং তার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই।

তবে জামায়াতে ইসলামী এক বিবৃতিতে এই অভিযোগ অস্বীকার করে বলেছে, প্রকৃত খুনিদের আড়াল করতে তাদের উপর দোষ চাপানো হচ্ছে।

হত্যাকাÐের ঘটনায় অজ্ঞাতনামা পাঁচজনকে আসামি করে মামলা করেন লিটনের বোন ফাহমিদা। বেশ কয়েকজনকে আটক করলেও তিন দিনেও খুনিদের শনাক্ত কিংবা গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ।

উল্লেখ্য, গত ৩১ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় নিজের বাড়িতে গুলি করে হত্যা করা হয় গাইবান্ধা-১ আসনের সরকারি দলের সংসদ সদস্য মঞ্জুরুল ইসলাম লিটনকে। ঘরের ভেতর ঢুকে খুব কাছ থেকে এমপিকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে সন্ত্রসীরা। মুমূর্ষু অবস্থায় তাকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান।

এর পরদিন রবিবার ময়নাতদন্ত শেষে মরদেহ ঢাকায় আনা হয়। সোমবার ঢাকায় সংসদ ভবনের দক্ষিণ প্লাজায় জানাজা শেষে গাইবান্ধায় নেয়া হয় লিটনের লাশ। সেখানে তৃতীয় জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে তার লাশ দাফন করা হয়।

আরটিএনএন থেকে নেয়া

নিউজটি ভালো লাগলে অবশ্যই শেয়ার করুন

Leave a Reply

x

Check Also

ছাত্রদল নেতা নুরু হত্যায় পুলিশের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য-প্রমান রেডি, নুরুর স্ত্রী মামলা করেছেন পুলিশের নামে

ছাত্রদল নেতা নুরু হত্যায় পুলিশের বিরুদ্ধে সাক্ষ্য-প্রমান রেডি, নুরুর স্ত্রী মামলা করেছেন পুলিশের নামে

ক্যাপ্টেন(অবঃ)মারুফ রাজুঃ সাম্প্রতিক কালে বহুল আলোচিত  ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সহ-সাধারণ সম্পাদক নুরুল আলম নুরু কে চট্রগ্রামে ...

loading...